মীরসরাইয়ে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, স্বর্নালংকারসহ ১৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট

নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ের করেরহাটে বসত বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। রবিবার (২৩ আগষ্ট) দিবাগত রাতে উপজেলার ১ নং করেরহাট ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড পশ্চিম ছত্তরুয়া গ্রামের করেরহাট বাজারের তরকারি ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেন এর বাড়িতে এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ঐসময় সশস্ত্র ডাকাতদল বাড়ির নির্মাণ শ্রমিক সহ বাড়ির সকলকে হাত পা বেঁধে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে, মোবাইল, নগদ টাকা, স্বর্নালংকার ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
বাড়ির মালিক মোশাররফ হোসেন বলেন, আনুমানিক রাত সোয়া তিনটার দিকে মুখোশ পরিহিত ৮, ১০ জনের সশস্ত্র ডাকাতদল দেওয়াল টপকে দ্বিতীয় তলায় উঠে ৩ জন নির্মাণ শ্রমিককে হাত পা বেঁধে একটা রুমে তালাবদ্ধ করে তাদের মোবাইল চিনিয়ে নেয়। তারপর নিচতলায় এসে আমার রুমের তালা ভেঙে প্রবেশ করে আমি আর আমার স্ত্রী ছালেহা বেগম মনি ও মেয়েদেরকে হাত পা বেঁধে মোবাইল চিনিয়ে নেয়। একে একে আলমারি, সিন্ধুক ও ড্রয়ারের লক ভেঙে নির্মাণ কাজের জন্য লোন করা নগদ ৫ লক্ষ টাকা, আগের জমা ২ লক্ষ টাকা, আমার স্ত্রী ও মেয়েদের ৬ ভরি স্বর্নালংকার লুট করে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে আমার ভাড়াটিয়া গিয়াস উদ্দিন এর রুমের তালা ভেঙে প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত পা বেঁধে তাদের নগদ টাকা, স্বর্নলংকার ও মোবাইল চিনিয়ে নিয়ে বাহিরে তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়। ডাকাতদল মোবাইল, নগদ টাকা ও স্বর্নালংকার সহ প্রায় ১৫ লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়ন বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের লোকজনের সাথে কথা বলেছি। আমার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। এবং এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার জন্য জোরারগঞ্জ থানা পুলিশকে অনুরোধ করেছি।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জোরারগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মফিজ উদ্দিন ভূইয়া বলেন, তদন্ত ওসি সহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেছি। তদন্ত শেষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।