সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যাকারীদের গ্রেফতার দাবি বাসাপ চট্টগ্রাম উত্তর জেলার কমিটির

সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির

প্রেস বিজ্ঞপ্তি ঃ পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছে বাংলাদেশ সাংবাদিক পরিষদ চট্টগ্রাম উত্তর জেলার কমিটির নেতৃবৃন্দ। একই সাথে মুজাক্কির এর উপর হামলার ঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে আইনে হাতে সোপর্দ করতে পুলিশ প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছে।
নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে বলেছেন সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে দেশের বিভিন্নস্থানে সাংবাদিকদের বস্তুনিষ্ট সংবাদ সহ্য করতে না পেরে কিছু কিছু অসৎ ব্যক্তি রাজনৈতিক প্রভাব বলয়কে কাজে লাগিয়ে সাংবাদিকদের কন্ঠরোধ করার বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করছে। তাদের পালিত সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দিয়ে সাংবাদিকদের উপর হামলা মামলা করাচ্ছে। এসব ঘটনার ধারাবাহিকতা দেখে দেশের মফস্বল এলাকায় কর্মরত সাংবাদিক সমাজ উদ্বেগ উৎকন্ঠা প্রকাশ করছে।
সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে দেশের কোনো সাংবাদিক কোনো রাজনৈতিক দল বা গোষ্ঠির প্রতিপক্ষ নয়। তারা দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন বিপ্লবের বাস্তব চিত্র তুলে ধরেন। পাশাপাশি মাদক,দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ার ভুমিকা রাখেন,সমাজে কিছু অসঙ্গতি দেখলে তার চিত্রও তুলে ধরার চেষ্টা করেন। বাসাপ এর পক্ষে বিবৃতিদাতাগণ হচ্ছেন-বাংলাদেশ সাংবাদিক পরিষদ চট্টগ্রাম উত্তরজেলা শাখার সভাপতি সাংবাদিক মীর আসলাম, সহ-সভাপতি কেশব কুমার বড়ুয়া, শফিউল আলম, মোঃ সোলাইমান আকাশ, সাধারণ সম্পাদক রাজিব মজুমদার, যুগ্ন সম্পাদক প্রদীপ শীল, সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী জয়নাল আবেদীন যুবাইর, প্রচার সম্পাদক এম জাবেদ হোসেন, দপ্তর সম্পাদক সানোয়ারুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য জাহেদুল আলম, আবুল খায়ের, রফিকুল ইসলাম ,কামরুল ইসলাম বাবু প্রমুখ।
উল্লেখ্য যে, গত শুক্রবার ১৯ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর চরফকিরা ইউনিয়নের চাপরাশীরহাট সরকার দলিয় দুই বিবাদমান গ্রুপের সংঘর্ষের সময় ছবি ধারণ করতে গেলে সেখানকার সন্ত্রাসীরা মুজাক্কির উপর গুলি চালায় । ওই ঘটনার পর তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে গেলে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে তিনি শনিবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।